গ্যাজেট বাংলাদেশ

সিম্ফনি v75 দাম কত বাংলাদেশ – ২০২৪

সিম্ফনি v75 দাম কত ? এই প্রশ্নটি বেশী সার্চ হত ২০১৭ সালে কারণ তখন এই মডেলের ফোনের অনেক বেশী চাহিদা ছিল। আর তারই ধারা বজায় রেখে এখনও অনেক মানুষ গুগ্ল থেকে সিম্ফনি v75 মডেলের ফোনটি সার্চ করে থাকে।

বিশেষ করে সেই সময়ে কম বাজেটের মধ্যে ভালো মানের ফোন গুলোর মধ্যে এটি একটি ছিল। এই ফোনের বেশ কিছু ফিচার এবং কনফিগারেশনের কারণে অনেকের চাহিদার একটি ফোনে পরিনত হয়েছে এই ফোনটি।

আর আপনি যদি এই ফোনের দাম এবং ফিচার সম্পর্কে জানতে চান তাহলে অবশ্যই আপনাকে একটু সময় দিয়ে এই আর্টিকেলটি পড়তে হবে। অনেকেই আছেন যে, শুধু ফোনের দাম দেখেই ফিরে চলে যায়।

আপনি এটি করতে যাবেননা কারণ এই আর্টিকেলে আমি আপনাকে জানিয়ে দিবো এই সময়ে এই ফোনটি কেনা উচিৎ হবেনা কিনা? কারণ এখন অনেক ধরণের আপডেত ফোন রিলিজ হয়েছে যেগুলোর ফিচার একদম আলাদা।

আপনি শুধু একটু মাত্র সময় খরচ করুন তাহলে বুঝতে পারবেন এই ফোনটি কিনলে আপনার উপকার হবে নাকি ক্ষতি হবে? তাছাড়াও বর্তমানে এই ফোনটি কি কি কাজে ব্যবহার হয়ে সেটিও জানিয়ে দেয়া হবে।

তাই চলুন ফোনটি সম্পর্কে বিস্তারিত সমস্ত কিছু জানা শুরু করে দেই,

সিম্ফনি v75 দাম কত

সিম্ফনি v75 দাম কত
সিম্ফনি v75
নেটওয়ার্ক২জি, ৩জি
র‍্যাম১জিবি
রম৮জিবি
প্রসেসরQuad-core 1.3 GHz
চিপ্সেট
ব্যাটারি2000 mAh
ক্যামেরা5 Megapixel ও সেলফি 2 Megapixel
দামঃ৳4,790.00

আরও দেখুনঃ প্রতিদিন আয় করুন ২০ ডলার তাও আবার ঘরে বসেই

সিম্ফনি v75 ফুল স্পেসিফিকেশন হাইলাইট

ফোনের নামঃ সিম্ফনি v75

রিলিজঃ 2016, February

ব্রান্ডঃ সিম্ফনি

মডেলঃ v75

দাম ৳4,790

ফোনের ক্যাটাগরিঃ স্মার্ট মোবাইল ফোন

প্রথমেই আসি এই ফোনটির কানেক্টিভিটির দিকে। এই ফোনটির সাথে ব্যবহার করা হয়েছে ২জি এবং ৩জি নেটওয়ার্ক ব্যবস্থা। যদিও এটি একটি পুরাতন মডেলের ফোন তারপরেও এই ফোনের সাথে ব্যবহার করা হয়েছে ১জিবি র‍্যাম এবং সেই সাথে ৮জিবি রম। এছাড়াও এই ফোনের সাথে আলাদা করে একটি মেমোরি কার্ড ব্যবহার করতে পারবেন।

এইদিকে ফোনটির ভারসাম্য ঠিক রাখতে ডাইমেনশন থাকছে 145 X 73.4 X 9.8 mm আর এটির ওজন রয়েছে ১৭২ গ্রাম। ২টি সিম কার্ড ব্যবহার করার মত সুবিধার পাশাপাশি এই ফোনটির সাথে থাকছে ৫ ইঞ্চির একটি ডিসপ্লে যার রেজোলিউশন থাকছে FWVGA+ 480 x 960 পিক্সেল।

Android 6.0 (Marshmallow) অপারেটিং সিস্টেম থাকছে এই ফোনটির সাথে। চিস্পসেটের কথা উল্লেখ করা না থাকলেও এটির সাথে প্রসেসর হিসাবে থাকছে Quad-core 1.3 GHz এবং জিপিইউ থাকছে Mali 400

ফোনটির ক্যামেরার দিকে খেয়াল করলে দেখতে পাওয়া যায় যে এই ফোনের সাথে ব্যবহার হয়েছে ৫ মেগাপিক্সেল রিয়ার ক্যামেরা এবং ২মেগাপিক্সেল সেলফি ক্যামেরা। আর এই ক্যামেরার মাধ্যমে ৩জিপি এবং ৭২০পি মুডে ভিডিও রেকর্ড করা যাবে।

Gold, Silver, Gray এই তিনটি কালারের পাশাপাশি এই ফোনের সাথে থাকছে ওয়াইফাই, ব্লুটুথ, এফএমরেডিও, জিপিএস এবং ইউএসবি ভার্সন ২.০। আর এই ছিল ফোনটির স্পেসিফিকেশন।

দেখুনঃ কম দামের মধ্যে আইটেল মোবাইল

ফোনটি কেন কিনবেন?

যেহেতু এই ফোনটি অনেক আগের মডেলের তাই বর্তমান সময়ের আপডেট হওয়া কোন অ্যাপ চলবেনা। যেমন বর্তমানে ফেসবুকের যে অ্যাপটি রয়েছে সেটি এই ফোনে ইন্সটল নাও হতে পারে।

কিন্তু চাইলে ফেসবুক লাইট ভার্সন ব্যবহার করা যাবে। বর্তমানে লাইট সফটওয়্যার হিসাবে যে সমস্ত সফটওয়্যার গুলো রয়েছে সেগুলো সহজেই চলতে পারবে। এই ফোন দিয়ে হাই গ্রাফিকের কোন গেমস খেলতে পারবেননা।

এই ফোনটি শুধু মাত্র তাদের জন্য যারা সাধারণ ইন্টারনেট ব্রাউজিং এবং কল করবেন তারা এই ফোনটি কিনতে পারেন। বর্তমানে এই ফোনটি বাজারে পাওয়া যায় কিনা সেটি আমার জানা নেই। তাই আপনি একটু খুজে দেখতে পারেন।

শেয়ার করুন

নির্ঝর ফারুক

প্রযুক্তি প্রেমী মানুষের মধ্যে আমিও একজন। ছেলেবেলা থেকেই প্রযুক্তির সাথে জড়িয়ে রয়েছি এবং অনেক কিছু শিখেছি ও এখনো শিখছি। যে বিষয় গুলো জানি সেই বিষয় গুলো নিয়েই মূলত এই ওয়েবসাইটে লেখালেখি করি। টেকজোন বাংলার একমাত্র সত্ত্বাধিকারী আমি নির্ঝর ফারুক সক্রিয় থাকবো আপনার সাথে ইনশাল্লাহ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *